যে কারণে আজকের ম্যাচ বাংলাদেেশের জন্য খুবই গুরত্বপূর্ণ

goldenage.com

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সপ্তম ম্যাচের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান। নিজেদের ৬টি ম্যাচেই হেরে যাওয়ায় তাদের সেমিফাইনালের সম্ভাবনা শেষ হয়ে গেলেও বাংলাদেশের বিপক্ষে জয় ছাড়া অন্য কিছু চিন্তা করছেন না বলে ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন আফগান অধিনায়ক গুলবদন নাইব।

এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পারফরমেন্স তাদের তুলনায় ভাল হলেও আফগানিস্তানের অধিনায়ক নিজেদেরকে বাংলাদেশের চেয়ে ‘দুর্বল দল’ বা ‘আন্ডারডগ’ হিসেবে মানতে নারাজ।

সোমবার বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচের পরে পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলা বাকি থাকবে আফগানিস্তানের।

বিশ্বকাপের খবর সংগ্রহ করতে যাওয়া বাংলাদেশের একটি টেলিভিশন চ্যানেলের সাংবাদিক তাওসিয়া ইসলাম বিবিসি বাংলার সাথে সাক্ষাতকারে বলেছেন, তিনি মনে করেন বেশ কয়েকটি কারণে বাংলাদেশের জন্য এই ম্যাচটি বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। আর সেসব কারণেই এবারের বিশ্বকাপের অন্যান্য ম্যাচের চেয়ে অনেক ক্ষেত্রে আলাদা এই ম্যাচ।
অন্তত একটি জয় চায় আফগানিস্তান

মিজ ইসলাম বলেন, “ছয়টি ম্যাচের সবকটিতে হারা আফগানদের আর হারানোর কিছু নেই। এবারের বিশ্বকাপে অন্তত একটি জয় চায় তারা। আর নিজেদের শেষ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে ভাল পারফর্ম করে দলের আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়েছে।”

“আর সেই জয়টা যে তারা বাংলাদেশের বিপক্ষেই তুলে নিতে চায়, সেবিষয়টিও বেশ আত্মবিশ্বাসের সাথেই সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা করেন আফগান অধিনায়ক।”

মিজ. ইসলাম মনে করেন আফগানদের এই মরীয়া মানসিকতা বাংলাদেশের বিপক্ষে তাদের প্রধান অনুপ্রেরণা হতে পারে।

একই মাঠে টানা দ্বিতীয় ম্যাচ আফগানদের

বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচের ভেন্যু সাউদাম্পটনের রোজ বোল স্টেডিয়ামে ২২শে জুন ভারতের বিপক্ষে খেলেছে আফগানিস্তান।

একদিনের ব্যবধানে আবার একই মাঠে নামছে তারা।

মিজ. ইসলাম জানান, ভারত-আফগানিস্তান ম্যাচটি যেই পিচে হয়েছে, সে পিচেই হবে বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচও।

“এবারের আসরে ওভালের যেই পিচে বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচ হয়েছিল, বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড ম্যাচটিও হয়েছিল একই পিচে। কিন্তু ঐ দুই ম্যাচের মধ্যে তিনদিনের ব্যবধান ছিল”, বলেন মিজ. তাওসিয়া।

“একদিনের ব্যবধানে একই পিচে খেলা হলে ভারত-আফগানিস্তান ম্যাচের মতই দারুণ স্পিন সহায়ক উইকেট হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।”

কয়েকদিন ধরে সাউদাম্পটনে থাকার কারণে এবং এই মাঠে এরই মধ্যে একটি ম্যাচ খেলায় আবহাওয়ার সাথে খাপ খাওয়ানো বা মাঠের সাথে পরিচিতির হিসেবে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের চেয়ে আফগানরা কিছুটা সুবিধা পেতে পারেন বলে মনে করেন মিজ. ইসলাম।

Share.

Comments are closed.