বেলজিয়াম-ফ্রান্স শ্বাসরুদ্ধকর এক খেলার জন্য অপেক্ষার প্রহর গুণছে বিশ্ববাসী

goldenage.com
“মাউথ ওয়াটারিং – যেটাকে বলে জিভে জল আসার মত একটি ম্যাচ।”

সেন্ট পিটার্সবার্গে মঙ্গলবারের বেলজিয়াম এবং ফ্রান্সের সেমি-ফাইনাল ম্যাচটি কেমন হতে পারে? এই প্রশ্নে ছোটো একটি বাক্যে উত্তর দিলেন বিবিসির সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক এবং ব্রিটেনের অন্যতম শীর্ষ ফুটবল ভাষ্যকার মিহির বোস।

“একবারে শুরুর দিকে গ্রুপ স্টেজে অসামান্য ম্যাচ হয়েছিল পর্তুগাল এবং স্পেনের মধ্যে, আমার মনে হয় আজকের ম্যাচটি তার চেয়েও ভালো হবে। এই ম্যাচটি যদি ফাইনাল ম্যাচ হতো, তাহলে হয়তো এই বিশ্বকাপের সবেচেয়ে কাঙ্ক্ষিত ফাইনাল হতো।”

কেন তিনি এতটা আশা করছেন?

মিহির বোসের উত্তর – এই বিশ্বকাপের দুই সেরা দল ফ্রান্স এবং বেলজিয়াম।

“এবং এই দুটো দল যে কৌশল অনুসরণ করছে, তাতে তারা দুজনেই ৯০ মিনিটের মধ্যে জেতার চেষ্টা করবে।, অ্যাটাকিং ফুটবল খেলবে, রক্ষণাত্মক খেলা খেলবে বলে মনে হয়না।”

বিশ্বকাপে ফাইনালের চেয়ে এমনিতেই সেমি-ফাইনালে অপেক্ষাকৃত ভালো খেলা হয়। ফাইনাল ম্যাচের মত চাপ থাকে না সেমিফাইনালে । খেলোয়াড়রা মনে করে, আর একটি ধাপ পেরুলেই ফাইনাল, তাই তাদের সবটুকু তারা ঢেলে দেয়।

আর এবার ফ্রান্স এবং বেলজিয়ামের মত দলের মধ্যে যুদ্ধ সেমিফাইনালের আকর্ষণ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে বলে মনে করছেন মিহির বোস।

অ্যাটাকিং ফুটবল খেলা এ দুটি দলের রয়েছে বিশ্বের সেরা বেশ ক’জন ফুটবলার।

ফ্রান্সের রয়েছে তরুণ কিলিয়ান এমবাপে, যাকে এখন ফুটবলে ‘নতুন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো’ হিসাবে ডাকা শুরু হয়ে গেছে, এবং ‘গোল মেশিন’ আন্তোয়ান গ্রীজম্যান। মাঝমাঠে পল পগবা।

অন্যদিকে বেলজিয়াম দলটিকেই এখন বলা হচ্ছে “গোল্ডেন জেনারেশন।” কেভিন ডি ব্রাইনা, রোমেলু লুকাকু, এডিন আজা বিশ্বের যে কোনো দলকে ছারখার করে দিতে পারে। জাপান এবং ব্রাজিলের সাথে পর পর দুটো ম্যাচে তা তারা করে দেখিয়েছে।

Share.

Comments are closed.