তিস্তা কথনঃ পার হয়ে যায় গরু পার হয় গাড়ি

তিস্তা কথনঃ পার হয়ে যায় গরু পার হয় গাড়ি

মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

নতুন বছরের শুরুতেই তিস্তা এখন মরুভূমি । গত বছরের কয়েক দফা বন্যার পর তিস্তার বুকে জেগে উঠেছে ধুধু বালু চর। তিস্তা নদী খনন, শাসন, ড্রেজিং ও সংরণ না করায় উজান থেকে নেমে আসা পলি জমে অগভীর খরস্রোতী রাুসি তিস্তা নদী আবাদি জমিতে রূপ নিয়েছে। এই বালু চলে তিস্তাপাড়ে লাখো কৃষক বিভিন্ন ফসল ফলিয়ে স্বপ্ন দেখছে।দীর্ঘদিনের তিস্তার ভাঙনে জমি খুঁয়ে যাওয়া পরিবার গুলো যেন তাদের প্রাণ ফিরে পেয়েছে। তিস্তায় শেষ সম্বল হারিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় চলে যাওয়া পরিবার গুলো পুনরায় চরে ফিরে এসে বাপ-দাদার ভিটায় পরিজন নিয়ে নানাবিধ ফসলের চাষাবাদে মেতে উঠেছে লালমনিরহাটের জেগে উঠেছে ৫৮ চর। বালুচরে দিগন্তজুড়ে সবুজের মাঠে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কৃষক। আলু,ভুট্টা,মরিচ,মুশুর ডাল,মিষ্টি কুমরা,চিনা বাদাম, পিয়াজ,রশুন, তরমুজ,তামাকসহ বিভিন্ন ফসল ফলার ধুম পড়েছে তিস্তায়।তিস্তার দুই পাড়ে বসবাসকারীরা জানান, তিস্তা এখন আর নদী নয়, এ যেন বিস্তীর্ণ আবাদি জমি। তিস্তার বুকে খেয়াপারে বা মাছ ধরতে নৌকা নিয়ে ছুটে চলা মাঝিমল্লাদের দৌড়ঝাঁপ নেই। পানি আর মাছে পরিপূর্ণ তিস্তার বুকে জেগে উঠেছে শুধুই বালুচর। মাছ ধরতে না পেরে মানবেতর জীবন যাপন করছে নদীর দুই পাড়ের কয়েক হাজার জেলে পরিবার।বিপন্ন হতে বসেছে তিস্তার বুকে বাস করা নানা জীববৈচিত্র্য। নৌকা নয়, পায়ে হেঁটেই,মহিসের গাড়িতে, আবার কখনও মটর সাইকেলে তিস্তা পাড়ি দিচ্ছেন নদী দুই পাড়ের মানুষজন। জেলে থেকে শুরু করে নদীকে কেন্দ্র করে বেঁচে থাকা লাখো মানুষের কান্নায় তিস্তাপাড়ের আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে।সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, এ অঞ্চলের বৃহৎ নদী তিস্তা এখন মরুভুমি। এর বুকে ফলছে নানা ধরনের ফসল। কথা হয় হাতীবান্ধা উপজেলার সানিয়াজান ইউনিয়নের তিস্তা পাড়ের পাসশেখ সুন্দর গ্রামের হাশেস আলীর সাথে তিনি বলেন, গতবছরে দুই বিঘা আবাদী জমি তিস্তায় বিলিন হয়ে গেছে।

Share.

Comments are closed.