ঢাকার পর রংপুরে খাবার চেয়ে মিছিল ও বিক্ষোভ

ঢাকার পর রংপুরে খাবার চেয়ে মিছিল ও বিক্ষোভ

goldenage.com

রংপুর নগরীর লালবাগ রেলওয়ে বস্তির হাজার হাজার বস্তিবাসি খাদ্যের দাবিতে নগরীর প্রধান সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে। এছাড়া একই দাবিতে নগরীর তাজহাট মহাসড়কে এলাকাবাসি বিক্ষোভ করে।

মঙ্গলবার দশটা থেকে লালবাগ এলাকায় রেলগেট বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে লালবাগ এলাকার রেলওয়ে লাইনের দুপাশে বসবাসকারী শতাধিক নারী পুরুষ শিশু। পরে দেড়টার দিকে অবরোধ তুলে নেয়া হয়। অপরদিকে একই দাবিতে নগরীর তাজহাট মহা সড়কে এলাকাবাসি বিক্ষোভ করে।

বিক্ষোভ কারিদের দাবি ২০ দিন ধরে তারা কর্মহীন অবস্থায় রয়েছে তাদের কোন কাজ নেই। পরিবার পরিজন নিয়ে অনাহারে মানবেতর ভাবে দিন কাটছে তাদের। প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বার বলার পরেও তাদেরে খাদ্য দেবার কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। বাধ্য হয়ে তারা বিক্ষোভ করছে। এদিকে পুলিশ কয়েকদফা চেষ্টা করেও বিক্ষোভ কারিদের সড়ক থেকে সরাতে পারেনি।

বস্তিবাসি মনোয়ারা বেগম জানান ২১ দিন ধরে লক ডাউন চলছে আমরা বাড়ি থেকে বের হতে পারিনা কোন বাড়িতে কাজও নেয়না করনার জন্য তাহলে পরিবার পরিজন নিয়ে কতদিন অনাহারে থাকবো সরকার অনেক বরাদ্দ দিচ্ছে এসব যায় কোথায়।
একই কথা জানালেনন সরোয়ার নামে ঠেলাগাড়ি চালক তিনি বলেন অনেকদিন ধরে কর্মহীন আমরা না খেয়ে আছি হয় আমাদের খাবার দেন তা নাহলে আমাদের মেরে ফেলেন। এ ভাবেই খাদ্যের জন্য আকুতি জনাচ্ছেন বস্তিবাসি।
এদিতে একই দাবিতে তাজহাট এলাকার কয়েকশত এলাকাবাসি সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। সেখানে প্রায় ২ ঘন্টার মত সড়ক অবরোধ চলে।

এ ব্যাপারে রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান জানান আমরা করপোরেশনের পক্ষ থেকে লালবাগ বস্তির ৬শ ৪০ পরিবারের প্রত্যেককে ১০ কেজি করে চাল দিয়েছি জেলা প্রশাসক আসিব আহসান আমার সাথে ছিলেন। এই চাল আমি করপোরেশনের নিজস্ব তহবিল থেকে টাকা দিয়ে সাড়ে ৬ টন চাল কিনে দিয়েছি।

জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, কদিন আগে লালবাগ বস্তিবাসিকে আমি নিজে দাড়িয়ে থেকে ত্রাণ দিয়েছি। প্রয়োজন হলে আরো দেয়া হবে।

সরকারী ভাবে প্রতিটি ওয়ার্ডে ৫শ পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল দেয়া হয়েছে। আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি সকলকে ত্রাণ দেয়ার যায়।

Share.

Comments are closed.