ডিমলায় তুচ্ছ ঘটনায় এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা

ডিমলায় তুচ্ছ ঘটনায় এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা

নীলফামারী প্রতিনিধি.

নীলফামারীর ডিমলায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আহত এক শিশুর চিকিৎসার টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ডিমলা উপজেলার পল্লীতে মঞ্জুরুল ইসলাম (৫০) নামের এক ব্যাক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে বুধবার দুপুরে জেলা মর্গে ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণ করেছে।

এ ঘটনায় হত্যার শিকার মঞ্জুরুল ইসলামের স্ত্রী আশেদা বেগম বাদী হয়ে নামীয় ১৫ জন ও অজ্ঞাত দুইসহ ১৭ জনের নামে ডিমলা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।
নিহত মঞ্জুরুল ইসলাম ডিমলা উপজেলার ঝুনাগাছ চাঁপানী ইউনিয়নের দনি ঝুনাগাছ চাঁপানী গ্রামের চাকলাপাড়ার মৃত নলেয়া মামুদের ছেলে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার বিকালে দুই ব্যাক্তি মোটরসাইকেল যোগে ডিমলার পল্লী গ্রামের প্রভাবশালী মৃত ছকিমুদ্দিনের ছেলে নাসির হোসেন রিয়াদের বাড়িতে বেড়াতে আসে। আসার পথে অজ্ঞাত ওই দুই ব্যাক্তির মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আহত হয় একই গ্রামের রবিউল ইসলামের চার বছরের কন্যা শিশু রিয়া।

মঞ্জুরুল ইসলাম মোটরসাইকেল আরোহীদের কাছে শিশুটির চিকিৎসা করানোর দাবি জানান। খবর পেয়ে ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের যুবলীগ সম্পাদক নাসির হোসেন রিয়াদ লোকজন নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে মোটরসাইকেলসহ তার দুই আত্নীয়কে তার বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়ে গ্রামবাসীর উপর হামলা চালায়। এতে ঘটনাস্থলে নিহত হয় মঞ্জুরুল ইসলাম।
ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মফিজ উদ্দিন শেখ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আসামীরা সকলে পলাতক। আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Share.

Comments are closed.